বিকাল ৩:৪২,   শনিবার,   ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ,   ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ,   ১৪ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

প্রতিশোধ নিতে দেড় বছরের শিশুকে হত্যা, চাচি আটক

জগন্নাথপুর প্রতিনিধি :
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে জায়ের ওপর প্রতিশোধ নিতে দেড় বছরের এক শিশুকন্যাকে পানিতে ফেলে হত্যার অভিযোগ উঠেছে চাচির বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত চাচিকে গ্রেফতারের পর শনিবার (২২ আগস্ট) সুনামগঞ্জ কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত দুই/তিন দিন পূর্বে উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের তেলিকোনা (নতুনপাড়া) গ্রামের রুমেন মিয়ার স্ত্রী সাজেদা বেগমের সঙ্গে তার দেবর পাবেল মিয়ার স্ত্রী সুবিনা আক্তারের তুচ্ছ বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে বিষয়টি নিষ্পত্তি হলেও প্রতিশোধ নিতে ছোট জা সুবিনা আক্তার বড় জায়ের ১৮ মাসের শিশু কন্যা সাদিয়া বেগমকে শুক্রবার (২১ আগস্ট) ভোরে বাড়ির নিকটবর্তী একটি ডোবার পানিতে ফেলে দেন। পরে ডোবা থেকে শিশুর মরদেহ থেকে উদ্ধার ক‌রেন স্থানীয়রা। এ খবর পেয়ে পুলিশ শুক্রবার বিকেলে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।
পুলিশ শিশুর পিতার লিখিত অভিযোগ পেয়ে, ওইদিন সন্ধ্যায় অভিযুক্ত চাচি সুবিনা আক্তারকে (২৫) আটক করে। শ‌নিবার আদালতে তোলা হ‌লে বিচারক তা‌কে জেলহাজতে পাঠান।
নিহত শিশুর বাবা রুমেন মিয়া বলেন, দুই/তিন দিন পূর্বে তুচ্ছ বিষয় নিয়ে আমার স্ত্রীর সঙ্গে আমার ছোট ভাইয়ের বউয়ের কথা কাটাকাটি হয়। এই সামান্য বিষয়কে কেন্দ্র করে আমার স্ত্রীর ওপর প্রতিশোধ নিতে আমাদের শিশুকন্যাকে পানিতে ফেলে হত্যা করা করেছে। এ ঘটনায় আমি লিখিতভাবে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি।
তিনি আরও বলেন, ঘটনার দিন (শুক্রবার) ফজরের আজানের পর আমি কাজের জন্য বাড়ি থেকে বের হই। এ সময় আমার স্ত্রী শিশুকন্যাকে নিয়ে ঘুমিয়ে ছিলেন। সকালের দিকে আমি খবর পাই আমার শিশুকন্যাকে পানিতে ফেলে দেওয়া হয়েছে।
স্থানীয় ইউপি সদস্য আশ্বাদুল হক বলেন, সকালে খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে জানতে পারি, শিশুটিকে তার চাচি সুবিনা আক্তার ভোরবেলা পরিবারের লোকজনের অগোচরে পানিতে ফেলে দিয়েছেন। প্রতিবেশী এক নারী এ ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছেন। পরে লোকজন ডোবার পানি থেকে শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার করেন।
জগন্নাথপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, শিশুর পিতার অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা এক নারীকে আটক করেছি। এ ঘটনায় থানায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে।