ভোর ৫:৫৭,   বুধবার,   ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ,   ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ,   ১৩ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

মাইজবাড়ীতে ব্যবসায়ীর বস্তাবন্দী মরদেহ উদ্ধার


স্টাফ রিপোর্টার :
সুনামগঞ্জ শহরতলী মাইজবাড়ী এলাকায় জুনু মিয়া (৩৩) নামের এক ফার্নিচার ব্যবসায়ীর বস্তাবন্দী মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
বৃহস্পতিবার (৫ নভেম্বর) ভোরে সদর উপজেলার কোরবান নগর ইউনিয়নের মাইজবাড়ী পূর্বপাড়া তার নিজ বাড়ির পাশ থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহত জুনু মিয়া মাইজবাড়ী গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মৃত তারা মিয়ার ছেলে।
স্থানীয় ও নিহতের স্বজনরা জানান, বুধবার (৪ নভেম্বর) রাতে নিহত জুনু মিয়ার বড় ভাইয়ের ছেলের বেশি অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে শিশুটির অবস্থা আশংকা জনক হওয়ায় চিকিৎসকরা তাকে সিলেটে প্রেরণ করে। পরে শিশুটির সিলেটে যাওয়ার সব ব্যবস্থা করে দিয়ে রাতেই জুনু মিয়া বাড়ির উদ্দেশ্য রওনা হন। কিন্তু রাতে বাড়িতে না আসলে সকালে তার পরিবারের লোকজন তাকে খুঁজাখুঁজি করে পায়নি। খুঁজাখুঁজির পর বাড়ির পাশে বস্তাবন্দি তার মরদেহ দেখতে পায় স্বজনরা। পরে স্বজনরা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করেন।
পুলিশ জানায়, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে জানা যায় পারিবারিক কলহের জের ধরে হত্যা কাণ্ডের ঘটনা ঘটতে পারে। মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর বিস্তারিত জানা যাবে। তবে প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনজনকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে। তারা হলেন, নিহতের ছোট ভাইয়ের স্ত্রী হাফসা বেগম ও তার ভাই নুরুল এবং নিহতের স্ত্রী রুবি আক্তার।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হায়াতুন নবী নিহতের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
এদিকে দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান। এসময় তিনি জানান, হত্যাকাণ্ডের ঘটনা কে বা কারা করেছে তা এখনো জানা যায়নি। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। ঘটনার সাথে যারা জড়িত তাদেরকে দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।