রাত ১০:১৪,   বৃহস্পতিবার,   ২৩শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ,   ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ,   ১৫ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

হাউসের সেমিনারে শহরের খাল উদ্ধার ও নদী খননের দাবি

নিউজ ডেস্ক :
হাওর এরিয়া আপলিপটমেন্ট সোসাইটি-হাউস এর উদ্যোগে “ভারসাম্যপূর্ণ পরিবেশ ও দূর্যোগে অভিযোজন প্রেক্ষিত : সুনামগঞ্জ” শিরোনামে এক সেমিনার রোববার সুনামগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে অনুষ্টিত হয়েছে। কোভিড-১৯ জনিত কারণে বিশ্ব পরিবেশ দিবসের বিলম্ভিত কর্মসূচি হিসাবে এ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। এবারের বিশ্ব পরিবেশ দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল ‘প্রকৃতির জন্য সময়’।
সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সুনামগঞ্জ পৌর সভার মেয়র নাদের বখত। প্যানেল আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা, হাওর বাঁচাও আন্দোলন কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরী সভাপতি আবু সুফিয়ান, নাগরিক অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক রমেন্দ্র কুমার দে, সুজনের নির্বাহী পরিচালক নির্মল ভট্টাচার্য্য।
হাউসের নির্বাহী পরিচালক সালেহিন চৌধুরী শুভ’র সঞ্চালনায় সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করে হাউসের পরিচালক একে কুদরত পাশা।
সেমিনারে বক্তারা বলেন, ভারসাম্যপূর্ণ পরিবেশই নিশ্চিত করবে মানুষ ও পৃথিবীর বিকাশ। দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রকৃতিকে ধ্বংশ নয়, দুর্যোগে অভিযোজন কৌশল আয়ত্ব করতে হবে। সুনামগঞ্জের প্রেক্ষাপটে তারা বলেন, ভৌগলিক কারনে এ জেলা বর্ষায় প্রায় পুরোটাই জলমগ্ন থাকে, আবার পাহাড়ের নিকটবর্তী হওয়ায় পাহাড়ী ঢলের প্রকোপও বেশী। সামান্য বৃষ্টি হলেই শহরের বাসাবাড়ীতে পানি প্রবেশ করে। এ থেকে পরিত্রাণ পেতে হলে, শহরের খাল উদ্ধার এবং সুরমা সহ সকল নদী খনন করতে হবে। প্রাকৃতিক জলধারা ঠিক রেখে ড্রেন নির্মান এবং সুনামগঞ্জের নতুন দুর্যোগ বজ্রপাতের হাত থেকে রক্ষা পেতে নতুন পরিকল্পনা গ্রহণের বিষয়গুলোও আলোচনায় গুরুত্ব পায়।
উন্মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মালেক হোসেন পীর, লেখক সুখেন্দু সেন, বিকাশ রঞ্জন চৌধুরী ভানু, সুনামগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি লতিফুর রহমান রাজু, সাধারণ সম্পাদক ইমরানুল হক চৌধুরী, সাংবাদিক জসিম উদ্দিন, অরুণ চক্রবর্তী, আজরফ চৌধুরী, প্রভাষক দুলাল মিয়া, খেলা ঘরের সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমদ, হাউসের পরিচালক এইচ এম জাকারিয়া, শান্তি বার্তার সম্পাদক ও প্রকাশক ওবায়দুল হক মিলন, হাওর বাঁচাও আন্দোলনের অর্থ সম্পাদক প্রদীপ কুমার পাল, অনিমেষ পাল ভানু, যুব জোটের সভাপতি মখলিছ আলী, সাধারণ সম্পাদক শরিফ আহমদ, সমাজ কর্মী ওবায়দুল মুন্সি, আলমগীর হোসাইন।